তৈয়বুর রহমান টনির ভ্রাতৃবিয়োগ

5

বাংলাদেশ রিপোর্ট ॥ যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের উপ প্রচার সম্পাদক ও মোড়েলগঞ্জ উপজেলা সোসাইটি ইউএসএ’র সাধারণ সম্পাদক তৈয়বুর রহমান টনির বড় ভাই, বিশিষ্ট সমাজসেবক ও রাজনীতিবিদ মাহাবুবুর রহমান রানা (৬৩) ইন্তেকাল করেছেন। গত ২৩ নভেম্বর শুক্রবার সকালে আকস্মিক হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ঢাকাস্থ জিগাতলায় নিজ বাসবভনে ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না লিল্লাহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ১ ছেলে, ১ মেয়ে, ৩ ভাই ও ২ বোনসহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। শুক্রবার জিগাতলা তিনমাজার মসজিদে বাদ জুম্মা জানাজার নামাজ শেষে ঢাকার আজিমপুর কবরস্থানে পিতা-মাতা ও বোনের পাশে তাঁর মরদেহ দাফন করা হয় বলে নিউইয়র্ক প্রবাসী টনি জানিয়েছেন। খবর ইউএনএ’র।
মাহাবুবুর রহমান রানা বাগেরহাট জেলার মোড়েলগঞ্জ বারইখালি গ্রামের সন্তান। তিনি প্রথমে ঢাকার লালবাগে এবং পরে জিগাতলায় বসবাস করতেন। তিনি ১৯৭২ সালে ঢাকা কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তার পিতা মরহুম শামছুর রহমান বাংলাদেশ এটিএনটি’তে একাউন্ট অফিসার হিসাবে কর্মরত ছিলেন এবং বাংলাদেশের প্রথম ডাকটিকিটর (ষ্ট্যাম্প কর্ণার ও ষ্ট্যাম্প ওরিয়েন্ট) ব্যবসায়ী ছিলেন মাতা মরহুমা রাবেয়া বেগম।
মরহুমের মেঝো ভাই এ্যাডভোকেট নজিবুর রহমান নজিব বর্তমানে সুপ্রিমকোর্টের ডেপুটী এটর্নী জেনারেল হিসাবে কর্মরত আছেন এবং বর্তমানে ধানমন্ডি থানা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক, ছোট ভাই তৈয়বুর রহমান তৈয়ব (টনি) যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী।
শোক প্রকাশ: এদিকে তৈয়বুর রহমান টনির বড় ভাই মাহাবুবুর রহমান রানার ইন্তেকালে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ ও মোড়েলগঞ্জ উপজেলা সোসাইটি ইউএসএ সহ বিভিন্ন মহলের পক্ষ থেকে গবীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করে মরহুমের বিদেহী আতœার শান্তি কামনা করা হয়েছে।
যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সামসুদ্দীন আজাদ ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ সংগঠনের উপ প্রচার সম্পাদক তৈয়বুর রহমান টনির বড় ভাই মাহাবুবুর রহমান রানার ইন্তেকালে শোক প্রকাশ করেছেন।
আরো শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ স্পোর্টস কাউন্সিল অব আমেরিকা’র সভাপতি মহিউদ্দিন দেওয়ান ও সাধারণ সম্পাদক জুয়েল আহমেদ। টনি স্পোর্টস কাউন্সিলের প্রচার সম্পাদক।
এছাড়াও শোক প্রকাশ করেছেন মোড়েলগঞ্জ উপজেলা সোসাইটি ইউএসএ’র সভাপতি মোহাম্মদ ফারুক হোসেন তালুকদার সহ মোড়েলগঞ্জ সোসাইটির নাদিম খান (দুলাল), মোহাম্মদ বাবুল তালুকদার (বাবু), ডা. সাখাওয়াত আলী খান, আব্দুস সাওার হাওলাদার, ওয়াদুদ তালুকদার, ওয়াহিদ, ফেরদৌস তালুকদার, জুয়েল রহমান, হায়দার, লুৎফুর রহমান হিমু, মাইনুল হোসেন মুহিত, রায়হান পারভেজ, গাজী ফয়জুর রহমান (সুজন), রাসেল আবেদিন, ইসমত আরা জাহান (পলি), স্বপন তালুকদার, আব্দুস সাওার, মোহাম্মদ আলী খান, নাসিবা তালুকদার, অঞ্জন হাওলাদার, সরোয়ার হোসেন, অমিত হাসান ফরহাদ, ফাতিমা তালুকদার, তোফাজ্জল হোসেন, এম ডি মাসুদ রানা, বনি, লুৎফুর তালুকদার, চঞ্চল, মোহাম্মদ কবির তালুকদার, কাউসার আলী, ফরহাদ তালুকদার , লতিফ সরকার, রুবেল আহমেদ, মান্না তরফদার, তোফাজ্জল হোসেন মিলন, মহাসিন সরকার, জাকির তালুকদার, মহিউদ্দিন তালুকদার, মোস্তাফিজ, পাল্টু, মমতাজ তালুকদার, পলাস, রিয়জ তালুকদার, দুলু তালুকদার, রোনক, সাবুর, সুলতান, সুমন ফরাজী, ভীনা, জাহানারা তালুকদার, হালিমা তালুকদার, অমিত হাসান ফরহাদ, মোহাম্মদ আলী খান, এম ডি মাসুদ রানা, সরোয়ার হোসেন, আব্দুস ছাওার প্রমুখ মোড়েলগঞ্জবাসী।