বর্ষার আগে খাল দখলমুক্ত করার নির্দেশ আতিকুলের

18

শুষ্ক মৌসুম হলেও আশকোনায় মূল সড়কে পানি জমে আছে। এর মধ্যেই হেঁটে কিংবা রিকশায় চলাচল করছে মানুষ। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আশকোনা এলাকায় মূল সড়কের এই জলাবদ্ধতা দূর করতে এলাকার সব নালা পরিষ্কার করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম।

মেয়র আতিকুল ইসলাম গতকাল মঙ্গলবার আশকোনা এলাকা পরিদর্শনে গিয়ে এই নির্দেশ দেন। গতকাল সকাল সাড়ে ৯টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত তিনি ডিএনসিসি এলাকার জলাবদ্ধতাপ্রবণ উত্তরার শায়েস্তা খাঁ অ্যাভিনিউয়ের কসাইবাড়ি, আশকোনা, বনানীর মাছরাঙা টিভি ভবনের সামনের সড়ক এবং উত্তর বাড্ডার শাহজাদপুর খাল এলাকা পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি ডিএনসিসির বর্জ্য ব্যবস্থাপনা আধুনিকায়নের নির্দেশ দেন।

বাড্ডায় গিয়ে মেয়র দেখতে পান, দখলের কারণে শাহজাদপুর খাল প্রায় নালা। খালের দুই পাশে দখল করে দোকান, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও বসতঘর গড়ে তোলা হয়েছে। কোথাও কোথাও বর্জ্যের স্তূপ। পানিনিষ্কাশনের জন্য বর্ষা শুরুর আগে খাল পরিষ্কার করে এর গভীরতা বাড়ানোর জন্য ওয়াসার সংশ্লিষ্টদের কাজ করার নির্দেশ দেন মেয়র।

এ সময় সেখানে উপস্থিত ঢাকা ওয়াসার পরিচালক (কারিগরি) এ কে এম শহিদউদ্দিন মেয়রকে বলেন, জেলা প্রশাসন যদি খালের সীমানা নির্ধারণ করে দেয়, তাহলে তাঁরা খাল খনন করে দেবেন।

উত্তর বাড্ডায় দেখা যায়, পয়োনালার আবর্জনা তুলে রাস্তার ওপর রেখেছেন সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা। সেগুলো সময়মতো নিয়ে না গেলে আবার নালায় গড়ায় বলে জানান বাড্ডার হাফিজুর রহমান। তিনি বলেন, সময়মতো না সরানোয় মানুষের চলাচলের দুর্ভোগ হয়। গতকাল মঙ্গলবারও তেমনই দেখা যায় উত্তর বাড্ডার সুবাস্তু টাওয়ারের সামনে পয়োনালার আবর্জনা তুলে রাখা। এ সময় আতিকুল ইসলাম বর্জ্য ব্যবস্থাপনার আরও কার্যকর করার নির্দেশ দেন।

মেয়র বনানী এলাকায় এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের নির্মাণকাজের জন্য জলাবদ্ধতা যাতে তৈরি না হয় সে জন্য রেললাইন ও মূল সড়কের মধ্যের জলাশয় আগামী ১৫ দিনের মধ্যে ৩০০ ফুট গভীর করার নির্দেশ দেন। এ ছাড়া উত্তরার শায়েস্তা খাঁ অ্যাভিনিউয়ের কসাইবাড়ি এলাকায় পয়োনালার ওপর অবৈধভাবে বিভিন্ন ধরনের স্থাপনা দুই দিনের মধ্যে সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, বিভিন্ন এলাকায় যান চলাচলের জায়গায় অবৈধ স্থাপনা সরাতে আগামী সপ্তাহ থেকে উচ্ছেদ অভিযান শুরু করবে ডিএনসিসি।

আতিকুলের সঙ্গে ডিএনসিসির প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মুহাম্মদ যুবায়ের সালেহীন, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী খন্দকার মাহাবুব আলমসহ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।