বারুদে ডার্বি শেষে রিয়ালের দাপুটে জয়

0
49

কী ছিল না ম্যাচে? বাইসাইকেল কিকে গোল করলেন কেউ, কেউ গোল করে ভিডিও রেফারিং দিয়ে নিশ্চিত করলেন। পেনাল্টিও হলো, ঘরের ছেলে পর হয়ে গিয়ে গোল উদ্‌যাপন করে আবার বাতিল হতে দেখলেন। মুহুর্মুহু ফাউলের বাঁশি বাজল। মুড়ি মুড়কির মতো হলুদ কার্ড বিলিয়ে গেলেন রেফারি। একটা লাল কার্ডের দেখাও মিলল। একটা ডার্বির কাছ থেকে এর চেয়ে বেশি আর চাওয়া ঠিক নয়। মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদকে তাদেরই ঘরের মাঠে ৩-১ ব্যবধানে হারাল রিয়াল মাদ্রিদ। এ জয়ে নগর প্রতিদ্বন্দ্বীদের টপকে লিগে দ্বিতীয়স্থানে চলে এল রিয়াল।

স্প্যানিশ ধারাভাষ্যকারদের কাছে কাসেমিরোর একটি নাম আছে, ‘অদৃশ্য মানব!’ মাঠে অতি আক্রমণাত্মক ফাউল করেও বারবার রেফারির নজর এড়িয়ে যান বলে এই নাম জুটেছে তাঁর। আজ তাঁর নামের সার্থকতা প্রমাণিত হয়েছে। তবে কাসেমিরো নন, অ্যাটলেটিকোর রক্ষণ সেটা করেছে। ম্যাচের ১৬ মিনিটে বক্সে উড়ে আসা বলে হেড করতে লাফিয়ে উঠেছিলেন সার্জিও রামোস ও রাফায়েল ভারানেরা। তাঁদের আটকাতে অ্যাটলেটিকো রক্ষণের সবাই ছুটে গেলেন। বল এসে পড়ল গোলরক্ষকের সামনে অরক্ষিত কাসেমিরোর কাছে। গোলবারকে নিজের পিঠের দিকে পেয়ে কাসেমিরোও করলেন অভাবনীয় এক কাণ্ড। সবাইকে অবাক করে বাই সাইকেল কিকে ইয়ান ওবলাককে ফাঁকি দিয়ে বল পাঠালেন জালে।

ম্যাচে ফিরতে অ্যাটলেটিকো বেশি সময় নেয়নি। ২৫ মিনিটে ভিনিসিয়ুসের সঙ্গে বল দখলের লড়াইয়ে জিতে ডিফেন্স চেড়া এক পাস দিয়েছেন আনহেল কোরেয়া। প্রায় মাঝমাঠে থাকা রিয়াল রক্ষণ আঁতোয়ান গ্রিজমানকে অফসাইডের ফাঁদে ফেলতে গিয়ে নিজেরাই বিপদে পড়েছেন। থিবো কোর্তোয়ার পায়ের ফাঁক দিয়ে বল জালে পাঠাতে ভুল হয়নি গ্রিজমানের। রিয়াল অবশ্য এর আগেই ম্যাচে এগিয়ে যেতে পারত আরেকবার। যদি না ২০ মিনিটে ভিনিসিয়ুসের পাস ঠিকমতো পায়ে লাগাতে পারতেন ভাসকেজ।

এ নিয়ে রিয়ালকে মাথা চাপড়াতে হয়নি। প্রথম ৩০ মিনিটের দম আটকানো ফুটবলের পর সবাই যখন একটু স্থির হয়ে শ্বাস নেওয়ার অপেক্ষায়। ঠিক তখন ৪২ মিনিটে ট্রেড মার্কে এক দৌড় দিলে ব্রাজিলিয়ান উইঙ্গার। ভিনিসিয়ুসকে আটকাতে শুধু হলুদ কার্ডই খাননি হিমেনেজ, পেনাল্টিও উপহার দিয়েছেন। দলকে এগিয়ে নিতে ভুল হয়নি রামোসের।

এই জানুয়ারিতেই অ্যাটলেটিকোতে যোগ দিয়েছেন আলভারো মোরাতা। রিয়ালের একাডেমিতে পরিপূর্ণ রূপ পাওয়া এই স্ট্রাইকার নিজের সাবেক দলের বিপক্ষে গোলই করে বসলেন ৫৪ মিনিটে। তিন বছর আগে জুভেন্টাসের হয়ে একই কাজ করে উদ্‌যাপন না করা মোরাতা এবার উদ্‌যাপন করেছেন ঠিকই। কিন্তু রেফারি জানালেন, ওটা অফসাইড ছিল। এবারও ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারির সহযোগিতা নিতে হয়েছে তাঁকে।

৭৪ মিনিটে ম্যাচটা শেষ করে দিয়েছেন বদলি নামা গ্যারেথ বেল। লুকা মদরিচের সাজিয়ে দেওয়া এক বল থেকে দারুণ এক গোল করে ফর্মে ফেরার আশা জাগিয়েছেন বেল। ৮০ মিনিটে টমাস পার্টে লাল কার্ড দেখে বের হয়ে যাওয়ার পর অ্যাটলেটিকোর হার নিশ্চিত হয়ে গেছে। ম্যাচের বাকি সময়টা নিজেদের মধ্যে বল চালাচালি করে অ্যাটলেটিকোর কষ্ট বাড়িয়েছে রিয়াল। এর মাঝেও দুটো সহজ গোলের সুযোগ নষ্ট করেছে তারা।

এ জয়ে ২৩ ম্যাচে ৪৫ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে রিয়াল। এক পয়েন্ট কম পেয়ে তিনে অ্যাটলেটিকো। ২২ ম্যাচে ৫০ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে বার্সেলোনা।