শাহবাগে অবরোধ, জিগাতলায় বিক্ষোভে পুলিশের টিয়ারশেল

0
54
রবিবার হামলার প্রতিবাদে শাহবাগ চত্বর অবরোধ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। ছবি: সংগৃহীত
রবিবার হামলার প্রতিবাদে শাহবাগ চত্বর অবরোধ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। ছবি: সংগৃহীত

এ আন্দোলনের ভেতর থেকে বহিরাগত সন্দেহে ১১ জনকে আটক করা হয়েছে।(ইউএনবি) রাজধানীর ধানমণ্ডির জিগাতলায় নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনরত ছাত্র-ছাত্রীদের ওপর শনিবারের হামলার প্রতিবাদে শাহবাগ চত্বর অবরোধ করেন শিক্ষার্থীরা। দুপুর ১টার দিকে শিক্ষার্থীদের একটি বিক্ষোভ মিছিল জিগাতলা পৌঁছানোর পর পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করে দিতে টিয়ারগ্যাসের শেল নিক্ষেপ করে।

৫ আগস্ট, রবিবার সকাল ১১টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) কয়েক হাজার শিক্ষার্থী রাজধানীর ব্যস্ততম এলাকাটিতে জড়ো হন। পরে তারা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে জিগাতলায় গেলে এ ঘটনা ঘটে।

এ ছাড়া শনিবার ছাত্র-ছাত্রীদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে হামলার প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা উত্তরা হাউস বিল্ডিং এলাকায় অবস্থান নেয়। বেলা ১টার দিকে রামপুরা ব্রিজ এলাকায় অবস্থান নেয় বেসরকারি ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

তা ছাড়া ঝিগাতলায় শনিবার স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবি) আন্দোলন করছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

এ আন্দোলনের ভেতর থেকে বহিরাগত সন্দেহে ১১ জনকে আটক করা হয়েছে। আটকদের মধ্যে একজন মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির ও কয়েকজন সিলেটের এমসি কলেজের ছাত্র বলে প্রাথমিকভাবে জানা যায়।

আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুল ইসলাম জানান, আটকরা সকলে ক্যাম্পাসের বাইরের। আন্দোলনের সময় তারা শাবি শিক্ষার্থীদের ছবি ও ভিডিও করছিল। এরা অতি উৎসাহী। তবে তারা সকলে আশপাশের লোকজন বলে জানান তিনি।

জালালাবাদ থানার সেকেন্ড অফিসার দিবাংশু পাল বলেন, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে তাদের উপস্থিতি সন্দেহ হওয়ায় শিক্ষার্থীরা তাদেরকে আটক করে পুলিশে দেয়। তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়।

এর আগে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে সকাল ৮টা থেকে শাবির প্রধান ফটকের সামনে অবস্থান করে ধর্মঘট পালন করে শাবির সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এ ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতর সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে এ ঘটনায় প্রশাসনিক কার্যক্রমে কোনো রকম অচলবস্থা সৃষ্টি হয়নি।

অবশ্য শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করেছেন ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রুহুল আমিন ও সাধারণ সম্পাদক ইমরান খান। শাবির ছাত্রলীগ ইউনিট আন্দোলনের প্রতি তাদের সমর্থন জানায়।

শনিবার রাজধানীর জিগাতলা ও মিরপুরে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। এতে অনেক ছাত্রছাত্রী আহত হয়।

LEAVE A REPLY