সময় বাঁচাতে অনলাইনে বিল পরিশোধ

15

দেশে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষের অনলাইন নির্ভরতাও বাড়ছে। তাদের সেবা দিতে দেশের অধিকাংশ ব্যাংক এখন ডিজিটাল। গ্যাস, বিদ্যুৎ, স্কুল–কলেজের বেতন, ইন্টারনেট সেবা ইত্যাদির বিল অনলাইনের মাধ্যমে পরিশোধ করা যাচ্ছে। আগে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে নানা রকম বিল পরিশোধ করতে হতো। আধুনিক ব্যবস্থায় মানুষের সময় বেঁচে যাচ্ছে। ব্যাংকগুলোর কাজও দ্রুত হচ্ছে।

দেশে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক, সিটি ব্যাংক, ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড, ইউসিবিএল, ব্যাংক এশিয়া, ঢাকা ব্যাংক, প্রাইম ব্যাংক, প্রিমিয়ার ব্যাংক, ডাচ বাংলা ব্যাংক, যমুনা ব্যাংক, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক, মিডল্যান্ড ব্যাংক, ব্র্যাক ব্যাংক, পূবালী ব্যাংক, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, সাউথ ইস্ট ব্যাংক, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ, ট্রাস্ট ব্যাংক, এনআরবি ব্যাংকের মতো অনেক ব্যাংকে ডিজিটাল সেবা নিতে পারবেন।

সরকারি ও বেসরকারি ব্যাংকগুলোর কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দেশে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বিদ্যুৎ ও গ্যাস বিল প্রদানের হার বাড়ছে। সময় সাশ্রয়, লাইন বিড়ম্বনা এবং দূরত্বের কষ্ট এড়াতে নগর এবং গ্রাম উভয় অঞ্চলের মানুষ মোবাইল ব্যবহার করে বিল পরিশোধে আগ্রহী হচ্ছেন। বর্তমানে অধিকাংশ ব্যাংকই ইন্টারনেট ব্যাংকিং সেবা প্রদান করে থাকে। অনেকের আছে মোবাইল ব্যাংকিং সেবাও। এ সেবার আওতায় অনলাইন বিল পরিশোধ এখন সহজ হয়েছে।

ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেডের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ডিজিটাল সেবা ও অনলাইনে বিল পরিশোধের বিষয়গুলো এখন প্রচলিত ব্যাংকিংয়ের পাশাপাশি বিকল্প চ্যানেল তৈরি করেছে। এটি মানুষকে ডিজিটাল ক্ষমতায়নে সাহায্য করছে। আগে যেখানে যেকোনো বিল পরিশোধে মানুষকে ব্যাংকে গিয়ে ব্যাংকের ওপর নির্ভর করে থাকতে হতো, এখন যেকোনো জায়গা থেকে যেকোনো সময়ে তা করা যাচ্ছে। ইউসিবি যেমন ইউপে নামের সেবার অধীনে যেকোনো ব্যাংকের গ্রাহককে সেবা দিচ্ছে। এটা সবার জন্য বিল পরিশোধের সুবিধা বলা যায়। ইউসিবির ডিজিটাল সেবার পাশাপাশি ইউক্যাশ নামের মোবাইল পেমেন্ট বা ওয়ালেট সেবাও রয়েছে। এ ধরনের যৌথ সুবিধার ব্যাংক হিসেবে অগ্রগামী ইউসিবি। তাদের অনলাইন রিসাইক্লেয়ার সেবা, ট্যাপ অ্যান্ড পে সেবাও রয়েছে।

ব্যাংক এশিয়ার হেড অব এডিসি মো. মনিরুজ্জামান খান বলেন, শাখা ও অনলাইনের মাধ্যমে আমাদের ব্যাংক থেকে গ্রাহককে নানা রকম ডিজিটাল ও নিরাপদ সেবা দেওয়া হচ্ছে। আমাদের ব্যাংকের মাধ্যমে পাসপোর্ট, ই-জিপি, ডিপিডিসি, ডেসকো, ওয়াসা, তিতাস গ্যাস, কর্ণফুলী গ্যাস ও সুন্দরবন গ্যাস বিল অনলাইনের মাধ্যমে জমা দেওয়া যায়। এ ছাড়া বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (আইসিএমএবি, আইসিএবি, ডিসিএইচটি), বীমা প্রতিষ্ঠান, তৈরি পোশাক প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের স্বয়ংক্রিয় প্রক্রিয়ার কাজ সম্পন্ন করেছে। অধিকাংশ সেবাসহ প্রযুক্তিনির্ভর মোবাইল ও ইন্টারনেট ব্যাংকিং সেবা চালু করেছে ব্যাংক এশিয়া।

সুপারশপে কেনাকাটা, অনলাইন ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে টাকা পাঠানো, অনলাইন দোকান থেকে পণ্য কিনে দাম পরিশোধ করা, স্কুল-কলেজের ফিসহ গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানির বিল দেওয়ার সুযোগ রয়েছে বলে জানালেন মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের হেড অব এডিসি রবিউল আলম। তিনি বলেন, ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ড দিয়ে কিস্তিতে বিভিন্ন পণ্য ক্রয় করার সুযোগ রয়েছে। বর্তমানে এমটিবির ১১৫টি শাখায় অনলাইন ব্যাংকিং পরিচালিত হচ্ছে। এই শাখাগুলোতে ইন্টারনেট ব্যাংকিং, এটিএম নেটওয়ার্ক, পস নেটওয়ার্ক, এজেন্ট ব্যাংকিং নানা সুবিধা রয়েছে।

স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের করপোরেট অ্যাফেয়ার্স, ব্র্যান্ড অ্যান্ড মার্কেটিং বিভাগের প্রধান বিটপী দাশ চৌধুরী জানান, তাঁদের অনলাইন ব্যাংকিং ও এসসি মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে গ্রাহকসেবা দেওয়া হচ্ছে। এতে গ্রাহক দ্রুত তাঁদের ব্যাংকিং সেবা, বিল পেমেন্ট ও অর্থ স্থানান্তর করতে পারেন। এ ছাড়া হিসাবের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ ও লেনদেন বুঝতে পারেন। মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাপের মাধ্যমে নিরাপদ লেনদেন করা যায়। আমাদের মোবাইল ওয়ালেট সেবা থেকে বিকাশে টাকা পাঠানো যায়। এ ছাড়া অন্যান্য বিল পরিশোধের সেবা আনারও কাজ চলছে। যেকোনো গ্রাহকসেবা কেন্দ্রে মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে সেলফ সার্ভিস সেবা নেওয়া যাবে। এতে গ্রাহকের সময় বাঁচে।

প্রাইম ব্যাংকের কনজ্যুমার ব্যাংকিং বিভাগের প্রধান এ এন এম মাহফুজ বলেন, অ্যালটিচিউড নামে আমাদের ইন্টারনেট ব্যাংকিং সেবা রয়েছে। গ্রাহক চাহিদা অনুসারে সেবা দিচ্ছে প্রাইম ব্যাংক। ডিজিটাল ব্যাংকিং প্ল্যাটফর্ম অ্যালটিচিউড ওয়েবভিত্তিক প্ল্যাটফর্ম হিসেবে যাত্রা শুরু করলেও অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস প্ল্যাটফর্মে এসেছে। এতে অর্থ স্থানান্তর, মোবাইল টপ আপ, বিভিন্ন রকম বিল প্রদানের সুবিধা আছে। ক্রেডিট বিল, ইনস্যুরেন্স প্রিমিয়াম, টিউশন ফি দেওয়ার সুবিধাও আছে।

ব্র্যাক ব্যাংকের ডিজিটাল ব্যাংকিং অ্যান্ড ই-কমার্স, রিটেইল ব্যাংকিং বিভাগের প্রধান সিরাজ সিদ্দিকী জানান, ডিজিটাল ব্যাংকিং ও পেমেন্টের ক্ষেত্রে অগ্রগামী ব্র্যাক ব্যাংক। দেশে ই-কমার্স পেমেন্ট গেটওয়ে প্রথম এনেছে ব্র্যাক ব্যাংক। মোবাইলে আর্থিক সেবা দাতা বিকাশ ও রকেটের সঙ্গে সেবা দেয় এটি। ডিপিডিসি, ওয়াসার বিল, ইনস্যুরেন্স প্রিমিয়াম, সিলেট সিটি করপোরেশনের বিল, সিপিটিইউ, বাস টিকিট, ট্রেন টিকিট, ইন্টারনেট বিল দেওয়ার সুবিধা রয়েছে ব্র্যাক ব্যাংকে।

প্রিমিয়ার ব্যাংকের এসইভিপি, এজেন্ট ব্যাংকিং ও রিটেইল বিজনেস বিভাগের প্রধান শামীম মুর্শেদ বলেন, আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তির চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিয়ে নানা সেবা এনেছে প্রিমিয়ার ব্যাংক। গ্রাহকদের সব সময় ইন্টারনেটের মাধ্যমে নানা সেবা দিতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে প্রিমিয়ার ব্যাংক। ইন্টারনেট ব্যাংকিং, এসএমএস অ্যালার্টসহ নানা সুবিধা চালু করেছে প্রিমিয়ার ব্যাংক।

ইন্টারনেটে নানা বিল পেমেন্টের সুবিধা রয়েছে সিটি ব্যাংক, মিডল্যান্ড ব্যাংক, ডাচ বাংলা ব্যাংক, ঢাকা ব্যাংক, ইসলামী ব্যাংক, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, এনআরবি ব্যাংকের মতো আরও বেশ কিছু ব্যাংকে। বিভিন্ন ব্যাংকের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে বোঝা গেল ভবিষ্যতে আরও নতুন সুবিধা যুক্ত হয়ে মানুষের জীবনযাপনকে স্মার্ট করে তুলবে ডিজিটাল ব্যাংকিং।