সুচিকে দেয়া ‘স্বাধীনতা পদক’ কেড়ে নিচ্ছে প্যারিস

6

মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর ভয়াবহ নির্যাতনের বিরুদ্ধে কোনো ভূমিকা না রাখায় দেশটির কার্যত সরকার প্রধান অং সান সুচিকে দেয়া সম্মানসূচক স্বাধীনতা পদক প্রত্যাহার করছে ফ্রান্সের প্যারিস শহরের মেয়র অ্যানা হিদালগো। চলতি মাসের মাঝামাঝি সময়ে সিটি কাউন্সিল এ বিষয়টি চূড়ান্ত করবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

প্যারিস শহরের মেয়রের দফতর থেকে মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চিকে লেখা এক চিঠিতে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে নিয়ে উদ্বেগ এবং তাদের অধিকারের প্রতি সম্মান প্রদর্শনের আহ্বান জানিয়েছিলেন প্যারিসের মেয়র। কিন্তু মিয়ানমারের পক্ষ থেকে সেই চিঠির কোনো উত্তর দেওয়া হয়নি।

রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর বর্বরতার দায়ে সু চিকে দেওয়া কানাডার সম্মানজনক নাগরিকত্ব এবং অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের ‘অ্যাম্বাসেডর অব কনসাইন্স অ্যাওয়ার্ড’ প্রত্যাহার করা হয়। এর আগে একই ইস্যুতে অং সান সু চিকে দেওয়া একই রকম পদক কেড়ে নিয়েছে গ্লাসগো, এডিনবরা ও অক্সফোর্ড কর্তৃপক্ষ।

রাখাইনে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠির ওপর অনেক আগে থেকেই সহিংসতা চালিয়ে আসছে দেশটির সেনাবাহিনী। তবে গত বছরের অক্টোবরে অত্যাচারের মাত্রা সীমা ছাড়িয়ে যায়। তাদের ওপর চালানো হত্যা-ধর্ষন জাতিগত নিধনের উদ্দেশ্যে করা হয়েছে বলে জানায় জাতিসংঘ। সেসময় জীবন বাঁচাতে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে দশ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা বাংলাদেশের আশ্রয় গ্রহণ করে।

সেনাবাহিনীর অত্যাচারের বিরুদ্ধে কোনো ভূমিকায় পালন করেননি মিয়ানমারের কার্যত সরকার প্রধান অং সান সুচি। এরপরই একের পর এক আন্তর্জাতিক তোপের মুখে পড়ে সুচি এবং মিয়ানমার। আন্তর্জাতিক চাপে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ের নেয়ার চুক্তি করলেও শেষ পর্যন্ত নানা তালবাহানা করতে থাকে। সম্প্রতি রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার কাজ শুরুর কথা থাকলেও মিয়ানমারের প্রতি আস্থা না থাকায় সেখানে ফিরে যেতে রাজি হয়নি রোহিঙ্গারা। তাদের দাবি সেখানে পূর্ণ নাগরিক মর্যাদা পেলেই তারা মিয়ানমারে ফিরবে।