ব্রিটেন কাঁপাচ্ছে ৩ বছরের এই শিশু!

0
131

তিন বছরের মেয়ে। স্ট্রিট ফ্যাশনে সমস্ত সেলেবকেও পেছনে ফেলে দিয়েছে সে। ওই মেয়েই ব্রিটেনের কনিষ্ঠতম স্ট্রিট স্টাইল তারকা। ইনস্টাগ্রাম দেখলে সেটাই মনে হচ্ছে। সেই মেয়ে ব্রিটেনের রাস্তায় দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।

শ্যানেল ইনস্পায়ার্ড ড্রেস হোক কিংবা ফাঙ্কি লেদার জ্যাকেট সব কিছুতেই হিট কিয়েরা। মা চেলসি মেস তাকে নিয়ে ঘোরেন সবসময়। প্রথম শ্রেণির তারকাদেরও ‘কমপ্লেক্স’ দিতে পারে কিয়েরা। ইনস্টাগ্রামে তার এক হাজারেরও বেশি ভক্ত রয়েছে। মা ছবি তুলে ইনস্টাগ্রামে পোস্ট দিলেই হল। তাতে ছবি শেয়ারের বন্যা বয়ে যায়।

স্ট্রিট ফ্যাশনের একটা বড় অংশ জুড়ে ব্যবহার করা হয় দেয়াল। কিয়েরা নাকি ছবি তুলতে এতই ভালোবাসে যে, দেয়াল দেখলেই পোজ দেয় মেয়েটি। মা চেলসি বলছেন, ‘প্রথমে মোটেই ভাবিনি কিয়েরার পেজ এত জনপ্রিয় হবে। আটটা-ন’টা লাইক পেতাম প্রথমে। তারপর শুরু করলাম টুইনিং। মা-মেয়ে মিলে দু’জনে একই পোশাক পরে ছবি দিতে শুরু করলাম। সেই যে শুরু হল, এখনও বহাল।’

দুই আলমারি ভর্তি জামা-কাপড় রয়েছে কিয়েরার। সবক’টা পোশাকই নাকি তার খুব প্রিয়। কিয়েরার মা চেলসি সিঙ্গল মাদার। সবই সামলান তিনি। বলা যেতে পারে, মেয়েই তার সবকিছু। তার কথায়, ‘কিয়েরা ওর বাবার সঙ্গে থাকে না। তবে ওর বাবা দেখা করে মেয়ের সঙ্গে।’ চেলসি রিটেল ওয়ার্কার। তারই এক বন্ধু অনলাইন ক্লোদিং কোম্পানি শুরু করার পর চেলসিকে প্রস্তাব দেন, কিয়েরা যদি মডেল হয় তার পোশাকের। তাতে রাজি হয়ে যান চেলসি।

চেলসির প্রায় হাজার পাউন্ড খরচ হয়ে গেছে কিয়েরার পোশাকের পেছনে। তবুও থামতে চান না তিনি। ইনস্টাগ্রামের অনলাইন স্টোর থেকে নিজে পছন্দ করে মেয়ের জন্য পোশাক কেনেন।

মা-মেয়ে দু’জনেই একই রকম পোশাক পরেন, তাই রেডি হতে সময় লাগে মাঝে মাঝে। ঘণ্টা দুয়েক লেগে যায় কখনো কখনো। আবার কখনো দু’মিনিটেই রেডি। তবে যখনই বের হন, সেজেগুজেই বের হন তারা।

LEAVE A REPLY