পর্নো দেখা স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর—এ কথাটি সরকারিভাবে ঘোষণা দেওয়ার দাবি তুলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়া অঙ্গরাজ্যের একজন আইনপ্রণেতা।

ওয়াশিংটন পোস্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রবার্ট জি মার্শাল নামের ওই আইনপ্রণেতা এ–সংক্রান্ত একটি বিলও অঙ্গরাজ্য আইনসভায় প্রস্তাব করেছেন।

প্রস্তাবে রবার্ট জি মার্শাল বলেন, পর্নোগ্রাফি নানা ধরনের সামাজিক সমস্যার সৃষ্টি করছে। বিশেষ করে তরুণদের যৌন স্বাস্থ্য মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এ ছাড়া পর্নোগ্রাফির কারণেই শিশু ও নারীরা হেনস্তার শিকার হচ্ছেন। আইনসভায় ১১ জানুয়ারি থেকে নতুন অধিবেশন শুরু হবে। এ অধিবেশনেই পর্নো দেখাকে স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর ঘোষণা করার দাবি জানিয়েছেন তিনি।

রবার্ট জি মার্শাল বলেন, ১৯৬৪ সালে যুক্তরাষ্ট্রের সার্জন জেনারেল লুথার এল টেরি ধূমপানের সঙ্গে রোগের সম্পর্ক খুঁজে বের করেন। সেই প্রতিবেদন তিনি ফেডারেল সরকারের কাছে জমা দেন। এরপরই ধূমপানকে স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হিসেবে ঘোষণা দেওয়া হয়। ঠিক একইভাবে তিনি পর্নোগ্রাফিকে স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হিসেবে ঘোষণা দেওয়ার দাবি জানান। তিনি বলেন, ‘এটাকে যদি সমস্যা হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়, তাহলেই একটি নির্দিষ্ট কাঠামোর ভেতর থেকে তার সমাধানের পথ খুঁজে পাওয়া সম্ভব হবে।’

রবার্ট জি মার্শাল আরও বলেন, ‘পর্নোগ্রাফিতে নারীদের পণ্য হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এটা শেখায় যে নারীরা পণ্য আর পুরুষেরা সেই পণ্য ব্যবহার করে। এ ছাড়া পর্নোগ্রাফি নারী ও শিশুদের পণ্য হিসেবে বিবেচনা করায় সমাজে ধর্ষণের মতো ঘটনাও বেড়ে যাচ্ছে।’

প্রস্তাবে রবার্ট জি মার্শাল অবশ্য পর্নোগ্রাফি একদম বন্ধ করার কথা বলেননি। বরং এটা যে মহামারি আকার ধারণ করেছে, এ কারণে এ বিষয়ে শিক্ষা ও গবেষণার প্রয়োজনের কথাও উল্লেখ করেছেন রিপাবলিকান পার্টির আইনপ্রণেতা মার্শাল।

LEAVE A REPLY