ইসলামী ব্যাংকের প্রতি সন্তোষ প্রকাশ করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেছেন, ‘ব্যবসার দিক দিয়ে ইসলামী ব্যাংক এক নম্বর ব্যাংক। তবে তাদের বিদেশি অংশীদার পরিবর্তন হয়েছে। যা কিছু হয়েছে তাদের চাপেই হয়েছে।’

আজ রোববার সচিবালয়ে এক বৈঠকে ইসলামী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সাম্প্রতিক পরিবর্তন নিয়ে সাংবাদিকদের করা প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন অর্থমন্ত্রী।

ইসলামী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদে সাম্প্রতিক যে পরিবর্তন সেই পরিবর্তনকে কীভাবে দেখছেন—জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘ইয়েস, ইট লুকস গুড…। তবে তাদের মুনাফা আসলে কোথায় যায়, এটা নিয়ে একটা প্রশ্ন তো ছিলই। ইসলামী ব্যাংকের ফরেনার পার্টনার চেঞ্জ হয়েছে। এখন যা কিছু হয়েছে তাদের প্রেশারে হয়েছে।’

সচিবালয়ে মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এমসিসিআই) প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক করেন অর্থমন্ত্রী। এমসিসিআইয়ের সভাপতি নিহাদ কবির প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন।

বৈঠকে ইসলামী ব্যাংক কোনো ব্যবসায়ী গ্রুপের দখলে যাচ্ছে কি না—সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘ব্যবসায়ী গ্রুপের হাতে যাচ্ছে কি না, এখনো কিছু বলতে পারছি না। কোন কোন গ্রুপ জড়িত তাও বলতে পারছি না।’

ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনায় কোনো পরিবর্তন আসবে কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমি তা জানি না।’

গত বৃহস্পতিবার রাজধানীর একটি পাঁচ তারকা হোটেলে অনুষ্ঠিত পর্ষদ সভায় ব্যাংকটিতে বড় ধরনের পরিবর্তন আনা হয়। পরিবর্তন আনা হয়েছে ইসলামী ব্যাংক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান পদেও। নতুন পরিচালক হিসেবে পর্ষদ সভায় যোগ দিয়েই ব্যাংকটির চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন সরকারের সাবেক সচিব আরাস্তু খান। চেয়ারম্যান পদ ছাড়াও ব্যাংকটির পরিচালক ও ইসলামী ব্যাংক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করেন মুস্তাফা আনোয়ার। পদত্যাগ করেছেন ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মদ আবদুল মান্নানও। নতুন এমডি হিসেবে ইউনিয়ন ব্যাংকের এমডি আবদুল হামিদ মিঞার নাম অনুমোদন করা হয়। নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদন সাপেক্ষে তার নিয়োগ কার্যকর হবে।

LEAVE A REPLY